হাঁপানি (Asthma) কমান ঘরে বসেই।

Written by: moonlight


About : This author may not interusted to share anything with others

11 months ago | Date : September 20, 2016 | Category : অনারোগ্য রোগ,ক্রনিক রোগ | Comment : 1 Reply |

শীত কালে হাঁপানি রোগীদের কষ্ট হয় বেশি। এই রোগের তীব্রতা এতই বেশি যে রোগীর প্রতিটি নিঃশাসের সাথে রোগীর পুরু শরীর কাপিয়ে দেয়। বিভিন্ন কারনে এই রোগের মাত্রাত্বিক বেড়ে যেতে পারে। যেমনঃ- দুলা-বালি, হিমেল শুষ্ক বাতাস উরন্ত ফুলের রেনু ইত্যাদি।

ফলে অধিক স্বাসকষ্ট হতে পারে।

asthma

এই রকম অবস্থায় আপনার করনিয়।…

  • হঠাৎ করে শ্বাসকষ্ট তীব্র আকার ধারন করা। এর মাত্রা এতটাই যে বুকের ভিতর বাশির মত শব্দ এবং কাশিতে খুব কষ্ট হয়। সাথে জ্বরও থাকতে পারে।
  • হাঁপানির ফলে শ্বাসতন্ত্র বেশি সংকুচিত হয়ে গেলে ইন হেলার ভিতরে প্রবেশ করতে পারেন। সে ক্ষেত্রে নেবুলাইজার ব্যবহার করতে পারেন। হাপানির কষ্ট এড়াতে অতিরিক্ত একটি নেবুলাইজার ঘরে রাখা ভালো। চিকিৎসকের পরার্মশ অনুযায়ী স্যালাইন ও ঔষধ মিশিয়ে নিতে পারেন।
  • শ্বাসকষ্ট বেড়ে গেলে আপনার ব্যবহারকিত্ব ইনহিলার প্রতি ২০-৩০ মিনিট পর পর নিতে পারেন।
  • শ্বাসকষ্ট যদি অতিরিক্ত মাত্রায় বেড়ে যায়। অর্থৎ সহ্য করার মত নয়। তাহলে চিকিৎসকের পরার্মশ অনুযায়ী স্বল্প মেয়াদি স্টেরয়েড ঔষধ খেতে পারেন।
  • পিক ফ্লো মিটার নামে একটি যন্ত্র আছে যা হাঁপানি রোগ পরিমাপক। এই যন্ত্রটি হাপানি রোগীদের ঘরে রাখা ভালো। শ্বাস গ্রহন ক্ষমতে ৫০-৭৯ তে নেমে আসলে বুঝতে হবে রোগের মাত্রা বেশি।
  • বাসায় নেবুলাইজার বা ইনহিলার ব্যবহার করেও যদি এর ভালো বোঝা না যায়। সে ক্ষেত্রে হাসপাতালে যেতে হবে। কারন এর মাত্রা বেড়ে রেসপিরেটরি হতে পারে।

লিখাটি আপনার কালেকশানে রাখার জন্য আপনার ফেজবুকে শেয়ার দিন

One response to “হাঁপানি (Asthma) কমান ঘরে বসেই।”

  1. Tommy says:

    Well I guess I don’t have to spend the weekend fiurnigg this one out!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


↑ Top